অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা শুরু

জাতীয়

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথ উদোগে তৈরি নভেল করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের শেষ ধাপের পরীক্ষা শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ ওষুধ প্রস্তুতকারক কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা। মহামারি কোভিড-১৯ মোকাবিলায় বিশ্বে তৃতীয় ভ্যাকসিন হিসেবে অক্সফোর্ডের এই ভ্যাকসিন শেষ ধাপের পরীক্ষায় পৌঁছাল।

সোমবার অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলেছে, তারা করোনাভাইরাসের পরীক্ষামূলক ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা যুক্তরাষ্ট্রে শুরু করেছে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিনের পরীক্ষায় যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল সরকারের তহবিলের জোগান দিয়েছে।ইতোমধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী অপর দুই কোম্পানি মডার্না এবং ফাইজার/বায়োএনটেকের দুটি ভ্যাকসিন তৃতীয় ধাপের পরীক্ষায় রয়েছে। এ দুটি ভ্যাকসিনেও মার্কিন সরকার অর্থায়ন করেছে।

অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলেছে, যুক্তরাষ্ট্রে ভ্যাকসিনটির পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য তারা ইতোমধ্যে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বের ৩০ হাজার স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ করেছেন। যারা দেশটিতে বসবাসরত বিভিন্ন জাতি, বর্ণ ও ভৌগলিক গোষ্ঠীর সদস্য।এই স্বেচ্ছাসেবীদের মধ্যে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তি, এমনকি এইচআইভিতে আক্রান্তরাও রয়েছেন। এছাড়া কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হওয়ার সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে যারা রয়েছেন, সেই

জনগোষ্ঠীর সদস্যদের ওপরও ভ্যাকসিনটির পরীক্ষা চালানো হবে বলে জানিয়েছে অ্যাস্ট্রাজেনেকা।ব্রিটিশ এই কোম্পানি বলেছে, ভ্যাকসিনের পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী স্বেচ্ছাসেবীদের দুটি গ্রুপে বিভক্ত করে ভ্যাকসিন এবং প্ল্যাসেবো ডোজ প্রয়োগ করা হবে। চার সপ্তাহের ব্যবধানে স্বেচ্ছাসেবীদের দেহে দুটি ডোজ দেয়া হবে।

অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা ব্রিটেন, ব্রাজিল এবং দক্ষিণ আফ্রিকাতেও শুরু হয়েছে। জাপান এবং রাশিয়াতেও ভ্যাকসিনটি পরীক্ষামূলক প্রয়োগের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে কোম্পানিটি।অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলছে, তৃতীয় ধাপের পরীক্ষায় বিশ্বজুড়ে ৫০ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবীর দেহে ভ্যাকসিনটি প্রয়োগের পরিকল্পনা রয়েছে। এরমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে ৩০ হাজার এবং লাতিন আমেরিকা, এশিয়া, ইউরোপ এবং আফ্রিকায় বাকি স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ দেয়া হবে।সূত্র: রয়টার্স, সিএনএন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *