অবতরণের সঙ্গে সঙ্গে ২ সন্তানকে রেখেই বিমানের ডানায় চলে যান নারী, কারণ জানলে তাজ্জব হয়ে যাবেন‍!

আন্তর্জাতিক

ইউক্রনের এক নারী যাত্রীকে কালো তালিকাভূক্ত করল ইউক্রেন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স। কারণ জানলে তাজ্জব হয়ে যাবেন।তুরস্ক থেকে কিয়েভের বোরিসপিল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামে ইউক্রেন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের একটি বোয়িং ৭৩৭ বিমান। তারপরই আজব কা’ণ্ড ঘ’টিয়ে ফে’লেন ওই নারী যাত্রী। বিমানের ইমার্জে’ন্সি দরজা খু’লে সোজা নে’মে পড়েন বিমানের ডানায়। তারপর সেখানে কিছুক্ষণ পায়চারি করে নেন। খবর দ্য সান’র।

বিমানবন্দর সূ’ত্রের খবর, ওই নারী জানিয়েছেন, বিমানবন্দরে নামার পর তাকে খুব ‘গরম’ লেগে যায়। এতটাই যে তিনি ভেতরে থাকতে পারছিলেন না। একটু ঠাণ্ডা হাওয়া পাওয়ার জন্য বাইরে বেরিয়ে পড়েন, তাই বলে গেট খু’লে বিমানের ডানায়!ওই নারীর দুই সন্তানও ছিল তার সঙ্গে। বিমানের এক যাত্রী সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন,

বিমান অবতরণ করার পর সব যাত্রী বাইরে বেরিয়ে আসেন। কিন্তু ওই নারী বিমানের একেবারে পেছন থেকে ই’মার্জে’ন্সি গেটের কাছে এসে তা খু’লে বাইরে বেরিয়ে পড়েন। ততক্ষণে তার দুই সন্তানও বাইরে বেরিয়ে এসেছে। তারাও বিমানের ডানার ওপরে মা-কে দেখে অবাক হয়ে যায়। প্রসঙ্গত, গরম লাগা ছাড়া বিমানের ডানায় ওঠার আর কোনও যুক্তিযুক্ত কারণ দেখাতে পারেননি ওই নারী।

আরো পড়ুন…ইসলামের অন্যতম একটি বিধান হচ্ছে নামাজ। ইমান আনার পর প্রত্যেক মুসলমানের জন্য সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত হলো পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ। এ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ফজিলতপূর্ণ ফজরের নামাজ। কোরআনে আল্লাহ ফজর নামে একটি সুরা অবতীর্ণ করেছেন। সেখানে বলেছেন, শপথ ফজরের। সুরা ফজর, আয়াত ১।

হাদিসে ফজরের নামাজের প্রতি বিশেষ তাগিদ এসেছে। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি ফজরের নামাজ আদায় করল সে আল্লাহর রক্ষণাবেক্ষণের অন্তর্ভুক্ত হলো।’ মুসলিম। অন্য হাদিসে ফজরের নামাজ আদায়কারীকে জান্নাতি মানুষ হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়েছে। জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘যে ব্যক্তি দুটি শীতল সময়ে নামাজ আদায় করবে, সে জান্নাতে প্রবেশ করবে।’ বুখারি, মুসলিম।কিয়ামতের কঠিন সময় ফজরের নামাজ নুর হয়ে দেখা দেবে। এমনকি আদায়কারীকে মহাবিপ’দের দিনে পথ দেখাবে। হাদিসে এসেছে, রসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যারা আঁধারে (ফজরে) মসজিদের দিকে হেঁটে যায়, তাদের কিয়ামতের দিন পরিপূর্ণ নুর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *