অবশেষে ইউএনও’র ওপর হা`মলার কারণ বললেন প্রধান অ`ভিযুক্ত আসাদুল

জাতীয়

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের ওপর হা`মলার ঘ`টনায় জ`ড়িত আ`সাদুল, সান্টু ও নবীরুল নামে ৩ জনকে গ্রে`ফতার করেছে র‌্যাব।শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় রংপুরে র‌্যাব কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানায় র‌্যাব।র‌্যাব জানায়, আটককৃ`ত আসাদুল স্বী`কারোক্তিমূলক জ`বানবন্দি দিয়েছে চু`রির উদ্দেশেই তারা এ হা`মলা চালিয়েছে।

তবে, র‌্যাব তাদের এ কথা এখনই বিশ্বাস করতে পারছে না। র‌্যাব বলছে, এ বিষয়ে আরো তদন্ত করার পরই মূল ঘ`টনা জানা যাবে। আসাদুল ও নবীরুল দু’জনই রঙ মি`স্ত্রি।এদিকে, গু`রুতর আ`হত ওয়াহিদা খা`নমের জ্ঞান ফিরেছে। তার অবস্থা এখন স্থি`তিশীল রয়েছে। তবে তিনি এখনও শ`ঙ্কামুক্ত নন।বৃহস্পতিবার (০৩ সেপ্টেম্বর) রাতে মাথায় অ`স্ত্রোপচারের পর থেকে ঢাকার নিউরোসায়েন্স ই`নস্টিটিউট অ্যান্ড হাসপাতালে ৭২ ঘণ্টার প`র্যবেক্ষণে রয়েছেন এ কর্মকর্তা।

জ্ঞান ফেরার পর তিনি কথা বলেন তার স্বামীর সঙ্গে।চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, তার র`ক্তচাপ ও হৃদ`স্পন্দন স্বা`ভাবিক আছে।রা`জধানীর ন্যাশনাল ই`নস্টিটিউট অব নিউরোসাইন্স হাসপাতালের উপ-পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম বলেন, ইউএনও ওয়াহিদার মা`থায় অ`স্ত্রোপচার শেষে রাতেই অপারেশন থিয়েটার থেকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। রাতেই তার জ্ঞান ফিরে আসে।

উল্লেখ্য, বুধবার (০২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ৩টার দিকে সরকারি বাসভবনে ঢুকে ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবাকে পি`টিয়ে আ`হত করে দু`ষ্কৃতকারীরা।তাদের আ`হত অবস্থায় উ`দ্ধার করে প্রথমে ঘো`ড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য ক`মপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে পরে রংপুর কমিউনিটি হাসপাতালের আ`ইসিইউতে চিকিৎসা দেয়া হয়। তার বাবাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ওয়াহিদা খানমকে এয়ার অ্যা`ম্বুলেন্সে ঢাকায় পাঠানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *