অবশেষে জট খুলছে শ্রমবাজারের, আশা দেখছে বাংলাদেশ

আন্তর্জাতিক

করোনার থাবায় বন্ধ হয়ে যায় পুরো বিশ্বের সব ধরনের কাজকর্ম। বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এক দেশের সঙ্গে অন্য দেশের যোগাযোগ। ঘরবন্দি হয়ে যায় ৮০০ কোটি মানুষ। এ সময় বিশ্ব শ্রমবাজার বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। বড় ধরনের ধাক্কা লাগে বাংলাদেশের শ্রমবাজারে। কাজ না থাকা, আকামা, ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়া সহ নানা কারণে গত ৫ মাসে বিভিন্ন দেশে থেকে কাজ হারিয়ে দেশে ফেরত এসেছে ৯৫ হাজার ২৬ শ্রমিক।

তবে করোনা সর্বাংশে নির্মূল না হলেও জীবনের প্রয়োজনে প্রায় সব দেশ স্বাভাবিক কাজকর্মে ফিরতে শুরু করেছে। উৎপাদনে ফিরেছে কলকারখানা। আগের অবস্থায় ফেরায় শ্রমবাজারও খুলে গেছে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশসহ ২৫টি দেশের শ্রমিক সৌদি আরবে প্রবেশের অনুমোদন দিয়েছে সৌদি সিভিল এভিয়েশন জেনারেল অথরিটি। শিগগিরই মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোসহ অন্য দেশগুলোও প্রবেশের অনুমোদন দিবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

সূত্র জানায়, ফেরত আসা শ্রমিকদের নিজ নিজ কর্মস্থলে পাঠাতে শুরু থেকেই তৎপরতা চালাচ্ছে সরকার। এর বাইরেও চাহিদা অনুযায়ী দক্ষ শ্রমিক পাঠাতে নানা উদ্যোগ নিচ্ছে প্রবাসীকল্যাণ ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়। বিভিন্ন দেশের মিশনগুলো যোগাযোগ রক্ষাসহ কোন দেশ কোন ধরনের জনশক্তির চাহিদা রয়েছে তা মন্ত্রণালয়কে জানানোর জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়। একই সঙ্গে শ্রমিকদের বহির্গমনের সময় যেন সমস্যায় পড়তে না হয় সেজন্য ইমিগ্রেশন কাউন্টারে তাদের তথ্য সংগ্রহ

ও সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ জন্য দ্রুততম সময়ে ইমিগ্রেশন বিভাগের সিস্টেমে তথ্য ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করার জন্য অতিরিক্ত সচিবকে (নিরাপত্তা ও বহিরাগমন অনুবিভাগ) আহ্বায়ক করে সুরক্ষা সেবা বিভাগের নেতৃত্বে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ এবং পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সমন্বয়ে পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।

চলতি মাসের ২৯ তারিখ সৌদি ফ্লাইট চালু হবে। এরপরই শ্রমিক নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্তে যাবে সৌদি সরকার। অন্যদিকে মালয়েশিয়া সরকার যেসব শ্রমিক ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সেখান থেকে ফিরে আসার সম্ভাবনা দেখছে বাংলাদেশ।জনশক্তি রপ্তানিকারকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ইন্টারন্যাশনাল রিক্রুটিং এজেন্সিসের (বায়রার) মহাসচিব শামিম আহমেদ চৌধুরী নোমান বলেন,

শ্রমবাজার নিয়ে আমরা আশার আলো দেখছি। আশা করছি করোনাপরবর্তী চাহিদা অনুযায়ী জনশক্তি পাঠাতে পারব। তবে সবকিছুই নির্ভর করছে করোনা নিয়ন্ত্রণের ওপর। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা আবার স্বাভাবিক হবে। এ ক্ষেত্রে অবশ্যই আমাদের স্বাস্থ্যবিধির ওপর কঠোরভাবে জোর দিতে হবে বলেও মনে করেন তিনি।

সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান বলেন, আটকে পড়া শ্রমিকদের নির্বিঘ্নে স্ব-স্ব দেশের কর্মস্থলে পাঠাতে গত বৃহস্পতিবার আন্তঃমন্ত্রণালয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয় ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতরা ছিলেন। নির্বিঘ্নে শ্রমিক যেতে এসব দেশের রাষ্ট্রদূতরাও সহযোগিতা করবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন বলে জানান মফিদুর রহমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *