আমার গু’লিতেই সিন’হার মৃ’ত্যু হয়: লিয়াকত

জাতীয়

আ’দালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হ’ত্যা মা’মলার আ’সামি টেকনাফের বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির সাবেক ইনচার্জ লিয়াকত আলী। রবিবার (৩০ আগস্ট) বেলা ১২টার দিকে কক্সবাজারের ম্যাজিস্ট্রেট আ’দালতে তার স্বী’কারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে। ডা’কাত মনে করে চেকপোস্টে সাবেক মেজর সিনহাদের গাড়ির গতি’রোধ করা হয়।

এরপর তার গু’লিতেই মেজর সিনহা নি’হত হন বলে আ’দালতে স্বীকা’রোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি।সূত্র জানিয়েছে, স্থানীয় কয়েকজন ব্যক্তি লিয়াকতকে ফোন করে জানিয়েছেন যে, সেনাবাহিনীর পোশাক পরা ওই ব্যক্তি (সিনহা) ডা’কাত দলের সদস্য। তার (সিনহার) হাতে আ’গ্নেয়া’স্ত্র আছে। একথা বিশ্বাস করেই ডা’কাত ধরতে চেকপোস্টে অবস্থান নেন লিয়াকত।

এবং তার করা গু’লিতে সিনহা নি’হত হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন তিনি।এদিন তৃতীয় দফায় তিন দিনের রি’মান্ডে থাকা অবস্থায় লিয়াকতকে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে আদা’লতে নেয়া হয়। সিনহা হ’ত্যা মা’মলার তদন্ত কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘তিনি (এসআই লিয়াকত) আমাদের কাছে তার দোষ স্বীকার করেছেন।

এর আগে আ’দালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন এপিবিএনের তিন সদস্য এসআই মো. শাহজাহান, কনস্টেবল মো. রাজীব ও মো. আব্দুল্লাহ। একই মাম’লায় টেকনাফ থানার বর’খাস্ত হওয়া ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত রি’মান্ডে আছেন। গত শুক্রবার (২৮ আগস্ট) তৃতীয় দফায় তাদের তিন দিনের রি’মান্ডে নেয় মাম’লার তদন্তকারী সংস্থা র‍্যাব।

প্রসঙ্গত, গত ৩১ জুলাই রাতে টেকনাফের মারিশবুনিয়া পাহাড়ে ভিডিওচিত্র ধারণ করে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে কক্সবাজারের হিমছড়ি এলাকার নীলিমা রিসোর্টে ফেরার পথে শামলাপুর এপিবিএন এর তল্লাশি চৌকিতে পুলিশের গু’লিতে নি’হত হন মেজর (অব.) সিনহা মো: রাশেদ খান।গত ৫ আগস্ট কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদা’লতে হ’ত্যা মাম’লা করেন সিনহা মো. রাশেদ খানের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস।

এতে প্রদীপসহ পুলিশের নয়জনকে আ’সামি করা হয়। এ ঘটনায় পুলিশ পৃথক তিনটি মা’মলা করেছে। পরে সাক্ষী অপ’হরণের অভিযোগে অজ্ঞাত’নামা আ’সামীদের বি’রুদ্ধে টেকনাফ থানায় আরো একট মা’মলা হয়েছে। এ মা’মলায় এ পর্যন্ত পুলিশের ৭ জন, এপিবিএনের ৩ জন ও স্থানীয় ৩ জন বাসিন্দা (পুলিশের মা’মলার সাক্ষী) গ্রে’ফতার হয়েছেন। মা’মলা তদন্ত করছে র‌্যাব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *