আমি নিজেও ধর্মপ্রাণ মুসলিম

জাতীয়

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে চিত্রনায়িকা মুনমুনের একটি নাচের ভিডিও। তবে মসজিদের পাশে ডান্স করেছেন বলে মূলত এই সমালোচনার শিকার হচ্ছেন মুনমুন। বিষয়টি নিয়ে দুঃখপ্রকাশ করেছেন এই চিত্রনায়িকা।

মুনমুন বলেছেন, ঢাকা ও চট্টগ্রামে কখনো দেখিনি টিনের ঘরে মসজিদ থাকতে পারে। আমার ধারণা ছিল না টিনের ঘরে মসজিদ থাকতে পারে। সাইনবোর্ড টানানো আমি খেয়াল করিনি। আমি অতটা অসচেতন নই যে মসজিদের সামনে ডান্স করবো, জানলে সেখানে বসতাম না।

ঘটনার বিষয়ে মুনমুন বলেন, আমি মুসলিম নারী, পাশাপাশি নায়িকা। দীর্ঘদিন ধরে দেশের বিভিন্ন মেলার মাঠে অনুষ্ঠান করেছি। ডান্স আমার পেশা। সেপ্টেম্বরের ৫ তারিখের ঘটনা। আমি একটি নৌকা ভ্রমণে গিয়েছিলাম। কখনো নৌকা ভ্রমণ করিনি। সখিপুর এলাকার কমিশনার ও গণ্যমান্যদের দাওয়াতে গিয়েছিলাম। ওইদিন খুব গরম ছিল। ছাতা নিয়ে বসেছিলাম। বেশি ঘুরতে পারিনি। খাওয়া দাওয়ার বিরতির জন্য একটি পরিত্যক্ত এলাকায় নৌকা ভেড়ানো হয়। খাওয়া-দাওয়া শেষে কমিশনার মিল্টন ভাই অনুরোধ করেন আপনার একটি ডান্স দেখতে চাই। তারা নাগিন ডান্স দেখতে চাচ্ছিলাম। আমি বলেছিলাম এখানে নাগিন ডান্স করা সম্ভব না। তারা অনুরোধ করে বলেন, আপনার অনেক ভক্ত এখানে আসছেন, ডান্স না করলে তাদের মন খারাপ হবে। তাদের অনুরোধে ডান্স করি।

তিনি বলেন, আমন্ত্রিতদের কথা রাখতে গিয়ে আমি এতকিছু ভাবিনি। যে সাইনবোর্ড দেখা যাচ্ছে ওটা আমার পেছনে ছিল, আমি ওইদিকে মুখ ঘুরাইনি, জানিও না। সবার অনুরোধ রাখতে গিয়ে বাংলা চলচ্চিত্রের একটি গানের সঙ্গে ছোট ডান্স করি। আর ডান্স করিনি। এরপর ঢাকায় আসি। খবর পাই একটি ভিডিও পোষ্ট হয়েছে, আমাকে নেগটিভভাবে প্রচার করা হচ্ছে।

এরপর ওখানের প্রশাসনের সঙ্গে আমার কথা হয়। তারা বলেন, আপনার পোশাক অশ্লীল না। আপনি অশ্লীল কোনো অঙ্গভঙ্গি করেননি। ওখানে মসজিদ ছিল কিং নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। অন্য পাশে মসজিদ ছিল সেই সাইনবোর্ড এখানে টাঙানো হয়েছে। নতুনভাবে লেখা সাইনবোর্ড।

যারা বলছেন আমি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনেছি। আপনারা কীভাবে ভাবলেন আমি এটা করেছি। আমি নিজে ধর্মপ্রাণ মুসলিম। এই কাজ করা আমার পক্ষে অসম্ভব। তারপরেও যদি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানে আমি আল্লাহর কাছে ক্ষমা-প্রার্থী। মানুষ মাত্র ভুল করেন। আপনাদের বোন হিসেবে, প্রিয় নায়িকা হিসেবে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। পৃথিবীটা অনেক সুন্দর, আর সুন্দর দৃষ্টিতে দেখলে সব সুন্দর বাকি দৃষ্টিতে দেখলে সব অসুন্দর।

মুনমুন বলেন, কিছু কুচক্রিমহল ভিডিও পোস্ট করে টাকা আয়ের উৎস খুঁজছেন। আমি তাদের বলবো, আমার অনুমতি নিয়ে ভিডিও পোষ্ট করা উচিৎ ছিল। যা ইচ্ছে পোস্ট করবেন আর আমি মেনে নেবো? হয়তো মেনে নাও নিতে পারি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *