আ.লীগের দুই গ্রুপে সংঘ’র্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

জাতীয়

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘ’টনা ঘটেছে। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ের এক কর্মচারীসহ অন্তত ১০ জন আ’হ’ত হন। রবিববার (১৩ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পাকুন্দিয়া উপজেলা সদরে এ ঘটনা ঘটে।

এদিকে, ফেসবুক লাইভে এমপির বিরুদ্ধে কথা বলায় এমপি নূর মোহাম্মদের পিএস আমজাদ হোসেন লিটন বাদী হয়ে রেনুর বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মা’মলা করেন। মা’মলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে রোববার ঢাকা থেকে পাকুন্দিয়ায় আসেন রেনু। সকালে কয়েকশ নেতাকর্মী ও সমর্থক থা’নাঘাট এলাকায় তাকে বরণ করতে যান।

১১টার দিকে রফিকুল ইসলাম রেনুর নেতৃত্বে শত শত নেতাকর্মী উপজেলা সদরে যান। এ খবরে এমপি নূর মোহাম্মদের সমথর্ক কয়েকশ লোক রেনুকে প্রতিহত করতে মাঠে নামেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে উভয় পক্ষের লোকজন রামদা, লা’ঠিসোঁটাসহ দেশীয় অ’স্ত্রশ’স্ত্র নিয়ে উপজেলা পরিষদের সামনে সং’ঘ’র্ষে জড়ায়।

এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘ’টনা ঘটে। সং’ঘ’র্ষের সময় ইট-পা’টকেল ছোড়া হয়। এতে ইউএনও অফিসের অফিম সহকারী হাবিবসহ কয়েকজন আ’হ’ত হন। উভয় পক্ষের অ’স্ত্রের ম’হড়ায় এলাকায় আ’তঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে পাকুন্দিয়া থানা পু’লিশসহ কিশোরগঞ্জ থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘট’নায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। উপজেলা সদরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পাকুন্দিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মফিজ উদ্দিন বলেন, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে। এ ঘটনায় থা’নায় মা’মলার প্রস্তুতি চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *