এবার ছাত্রদল-ছাত্রলীগকে বাদ দিয়ে একজোট হল ১২ ছাত্রসংগঠন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলকে-ছাত্রলীগকে বাদ দিয়ে একজোট হয়েছে ১২ ছাত্রসংগঠন। শুক্রবার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে ক্যাম্পাসে ক্রিয়াশীল মোট ১২টি ছাত্রসংগঠন নিয়ে গঠিত ‘সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্রঐক্য’ প্ল্যাটফর্মের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়া হয়। জোটভুক্ত সংগঠনগুলো হচ্ছে– বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, বিপ্লবী ছাত্র মৈত্রী, ছাত্র ফেডারেশন, বিপ্লবী ছাত্র যুব আন্দোলন, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ,

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট (মার্কসবাদী), নাগরিক ছাত্রঐক্য, স্বতন্ত্র জোট এবং ছাত্র গণমঞ্চ। এদিকে ছাত্রদলকে এই জোটে রাখা হয়নি। এ বিষয়ে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি আল কাদেরী জয় বলেন, ছাত্রদলের অতিত ইতিহাস ভালো না। ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় তারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিল। সবকিছু বিবেচনায় আমরা ছাত্রদলকে এই সংগঠনের বাইরে রেখেছি।সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন। এ সময় তিনি জোটের পক্ষে দাবি তুলে ধরেন।

দাবিগুলো হলো, ভিপি নুরুল হকসহ সব শিক্ষার্থীর ওপর হামলাকারীদের স্থায়ী বহিষ্কার ও আইনানুগ বিচার, ‘ব্যর্থতার’ দায়ে প্রক্টরের অপসারণ, আহতদের বিরুদ্ধে হওয়া ‘মিথ্যা মামলা’ প্রত্যাহার ও তাদের চিকিৎসার ব্যয়ভার প্রশাসন কর্তৃক বহন এবং ক্যাম্পাসে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা,

হলে হলে দখলদারি ও গেস্টরুম-গণরুম নির্যাতন বন্ধ করা প্রভৃতি।সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের(বাসদ) কেন্দ্রীয় সভাপতি আল কাদেরী জয়, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের (মার্কসবাদী) সভাপতি মাসুদ রানা ও বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি ইকবাল কবীর, ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি মেহেদী হাসান, ছাত্র ফেডারেশনের(গণসংহতি আন্দোলন) কেন্দ্রীয় সভাপতি গোলাম মোস্তফা, ছাত্র ফেডারেশনের

(বদরুদ্দীন উমর) সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল মাহমুদ, সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক বিন ইয়ামিন মোল্লা, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সুনয়ন চাকমা, বিপ্লবী ছাত্র-যুব আন্দোলনের সভাপতি আতিফ অনীক, শামসুন নাহার হল সংসদের ভিপি শেখ তাসনীম আফরোজ প্রমুখ।

Leave a Comment