ওসির বিদায়ে চোখের জলে ভাসলেন এলাকাবাসী

জাতীয়

ওসি মীর খায়রুল কবির। মনপুরা থেকে ভোলা সদর প্রায় সব থানাতেই দায়িত্বরত ছিলেন তিনি। সর্বশেষ গতকাল শনিবার দীর্ঘ কর্ম দিবস শেষ করে লালমোহন থেকে রাজশাহী রেঞ্জের উদ্দেশ্যে ভোলা ত্যাগ করেন। তার বিদায়ের খবরে ভোলাসহ লালমোহনের সচেতন মহল থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ চোখের চলে ভেসেছেন।পুলিশে ওসি হিসেবে চাকুর করে একজন ইমামের মতই নেতৃত্ব দিয়েছেন কর্মরত এরিয়ায়। তার

পরেও শনিবার বিদায়ের আগে ভোলাবাসীর উদ্দেশ্যে তার ফেসবুকে কর্মময় জীবনে অনিচ্ছাকৃত ভুলের ক্ষমা চেয়েছেন। ভোলাবাসীর উদ্দেশ্যে তার লেখা কথাগুলো হুবহু তুলে ধরা হলো-‘আসসালামু আলাইকুম, বদলিজনিত কারণে লালমোহন থানা হইতে রাজশাহী রেঞ্জের উদ্দেশ্যে

রওয়ানা হইলাম। ভোলা জেলায় আমার কর্মকালীন সময়ে মনপুরা থানা, বোরহানউদ্দিন থানা, দৌলতখান থানা, ভোলা সদর মডেল থানা ও সর্বশেষ লালমোহন থানায় কর্মরত ছিলাম। এই কর্মকালীন সময়ে সরকারি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কারো মনে যদি কোন কষ্ট দিয়ে থাকি তবে নিজ গুনে ক্ষমা করে দিবেন।

কর্মকালীন সময়ে আপনাদের সহযোগিতায় যে ভাল কাজ গুলো করতে পেরেছি তার সকল কৃতিত্ব আপনাদের। আর যে সকল কাজগুলো করতে পারি নাই তাহার সকল ব্যর্থতা আমার। আমার প্রতি আপনারা যে ভালবাসা দেখিয়েছেন তার জন্য আমি চির ঋনি হয়ে থাকলাম। আমি ও আমার পরিবারের সদস্যদের জন্য দোয়া করবেন। সবাই ভাল থাকবেন।’

আরও পড়ুন =প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোর হুমকি উড়িয়ে দিয়ে বেলারুশের রাজধানী মিনস্কে লক্ষাধিক জনতা বিক্ষোভ করেছে। বিক্ষোভ বন্ধে সেনা মোতায়েন এবং কঠোর হাতে দমনের হুমকি দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট। কিন্তু হুমকি তোয়াক্কা না করে মিনস্কে মানুষের ঢল নেমেছে রোববার। স্বৈরাচারী শাসকের অবসান চেয়েছে এবং ফের নির্বাচন দাবি করেছে বিক্ষোভকারীরা।বিবিসি বলছে, বিক্ষোভ দমনে দাঙ্গা

পুলিশ বিক্ষুব্ধ জনতার ওপর চড়াও হয়েছে। প্রেসিডেন্সিয়াল প্রাসাদের আশপাশ থেকে বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দিতে লাঠিপেটা ও পেপার স্প্রে ছুড়েছে। এসময় অনেক বিক্ষুব্ধ প্রতিবাদকারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।রোববারের শান্তিপূর্ণ মিছিলে দাঙ্গা পুলিশ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে বিক্ষোভকারী, মানবাধিকার কর্মী ও পর্যবেক্ষকরা।এর কিছুদিন আগে লক্ষাধিক মানুষ জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ করেছে। আর সেদিন ছিলো প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার লুকাশেঙ্কোর জন্মদিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *