কা-শ্মিরে মুসলমানদের আ-শুরার মিছিলে ভারতীয় আইনশৃ-ঙ্খলা বাহিনীর গু-লি

জাতীয়

অধিকৃত কাশ্মিরে মুসলমানদের আ-শুরার মিছিলে শটগানের গু-লি চালিয়েছে ও টিয়ার গ্যাস নি-ক্ষেপ করেছে ভারতীয় আইন-শৃঙ্খ-লা বাহিনীর সদস্যরা। শিয়াদের এ মিছিলে হা-মলার ঘ-টনায় বহু আহত হয়েছেন বলে প্রত্যক্ষ-দর্শীরা জানিয়েছেন।মহররমের ১০ তারিখ উপলক্ষে শনিবার এ মিছিলের আয়োজন করে প্রায় ৯৭ শতাংশ মুসলিম অধ্যুষিত হিমালয়ান অ-ঞ্চলটির মানুষজন।ঘ-টনার প্র-ত্যক্ষদর্শী জাফর আলি বার্তা সংস্থা

এএফপিকে জানান, মিছিলটি কা-শ্মিরের প্রধান শহর শ্রীনগরের পার্শ্ব-বর্তী বেমিনা এলাকা থেকে শুরু হয়। এ সময় সরকারি বাহিনীর অনেক সদস্য উপ-স্থিত ছিলেন।জাফর আলি ও অন্য যারা দেখেছেন তারা জানিয়েছেন, সমাবেশ বানচাল করতে নিরাপত্তা বাহিনী গু-লি ছুড়ে ও টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করে। পুলিশ বলছে, করোনাভাইরাসের কারণে জারি করা নিষেধা-জ্ঞা ভেঙেছেন এ লোকজন।অন্য আরেক প্রত্যক্ষদর্শী ইকবাল

আহমেদ জানিয়েছেন, মিছিলটি শা-ন্তিপূ-র্ণই ছিল এবং সেখানে নারীরাও অংশ নিয়েছিলেন। তারপরও গুলি করা হয়েছে।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, এ ঘটনায় অন্তত ৪০ জন আহত হয়েছেন।এছাড়া, হাসপাতালের কর্মীরা বার্তা সংস্থা এপিকে জানিয়েছেন, অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছেন। যাদের মধ্যে কিছু ছিল গু-লি ও টিয়ার গ্যা-সে আহত।সূত্র : আলজাজিরা

আরও পড়ুন=সম্প্রতি বার্সেলোনার সঙ্গে বুদ্ধির লড়াইটাও করতে হচ্ছে লিওনেল মেসির। সেই লড়াইয়ে এগিয়ে থাকছেন মেসিই। বার্সার একের পর এক চিন্তা রুখে দিচ্ছেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড। মেসি-বার্সার মধ্যে যুদ্ধের আভাস তাই শীতিল হতে শুরু করেছে। কারণ মেসির প্রতি নমনীয় হচ্ছে বার্সেলোনারকাতালান ক্লাবটি বুঝে গেছে মেসি বার্সেলোনায় থাকবেন না। ম্যানচেস্টার সিটিতে যাবেন তিনি। মানসিকভাবে সেই প্রস্তুতি তিনি নিয়েই রেখেছেন। মেসিকে তারা শেষ পর্যন্ত রুখতে পারবে না কাতালানরা। বরং দুই পক্ষের সম্পর্ক তিক্ত হওয়ার সম্ভাবনা জোরালো।

কারণ বার্সা মেসির সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি হচ্ছে না। মেসি তাই অনুশীলনে যোগ দেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। বার্সা তাই কোণঠাসা হয়ে মেসির রিলিজ ক্লজের শর্ত শীতিল করার কথা ভাবছে। সংবাদ মাধ্যম মিরর জানিয়েছে, বার্সেলোনা মেসির দাম নির্ধারণ করেছে ২৮০

মিলিয়ন ইউরো। নগদ অর্থে মেসিকে এই দামেও কেনা অসম্ভব সিটির জন্য। বার্সা তাই ১৩০ মিলিয়ন ইউরোর সঙ্গে ম্যানসিটি থেকে ফুটবলার নেওয়ার কথা চিন্তা করছে। শত মিলিয়নের কাছাকাছি একটা নগদ ফান্ড পেতে চায় তারা। সেটা না পেলেই ধরতে পারে শক্ত পথ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *