গৃহশিক্ষকের সঙ্গে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

জাতীয়

পাবনার সাঁথিয়ায় পরকীয়ায় জড়িয়ে মেয়ের গৃহশিক্ষকের সঙ্গে উধাও হয়েছেন প্রবাসীর স্ত্রী। বিয়ের প্রলোভনে নগদ ৯ লাখ টাকাসহ সর্বস্ব হাতিয়ে নিয়ে ঢাকায় প্রবাসীর স্ত্রীকে ফেলেই পালিয়েছেন গৃহশিক্ষক মিজান।অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়নের গণেশপুর গ্রামের চাঁদ আলীর (দলু) মেয়ে রোজিনা খাতুনের সঙ্গে ৯ বছর আগে সুজানগর উপজেলার ঘোড়াদহ গ্রামের নজরুলের বিয়ে হয়। সাংসারিক সচ্ছলতার আশায় সাড়ে ৫ বছর আগে স্ত্রী ও কন্যা রেখে বিদেশ যান নজরুল। কয়েক মাস পর স্বামীর বাড়ি থেকে বাবার বাড়ি গণেশপুরে আসেন রোজিনা।

রোজিনা তার মেয়েকে পার্শ্ববর্তী একটি কিন্ডারগার্টেনে ভর্তি করেন। ওই স্কুলের শিক্ষক ও কৃষ্ণপুর গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছেলে মিজানুর রহমান মিজানকে মেয়ের গৃহশিক্ষক হিসেবে পড়ানোর দায়িত্ব দেন। এরই মধ্যে মেয়ের শিক্ষক মিজানের সঙ্গে প্রেমে জড়িয়ে পড়েন প্রবাসীর

স্ত্রী রোজিনা।দুই বছর ধরে তাদের প্রেম চলতে থাকে। প্রেমের কাহিনী জানাজানি হলে মিজানকে বিয়ের জন্য চাপ দেন রোজিনা। বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ৪ আগস্ট রোজিনাকে নিয়ে গাজীপুর যান মিজান। সেখানে ঘর ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন দুইজন।বিয়ের জন্য চাপ দিলে টালবাহানার এক পর্যায়ে ২৯ আগস্ট গাজীপুরে মিজানের ভগ্নিপতি শফিকুলের বাসায় প্রেমিকাকে রেখে টাকা নিয়ে পালিয়ে যান মিজান।

কোনো উপায়ান্তর না পেয়ে বুধবার রাত ১১টার দিকে রোজিনা নানার বাড়ি সাঁথিয়ার আতাইকুলা ইউনিয়নের রঘুনাথপুরে আসেন। বৃহস্পতিবার রাতে রোজিনা বাদী হয়ে আতাইকুলা থানায় মিজান ও তার বোন-ভগ্নিপতির নামে অভিযোগ দায়ের করেন।রোজিনা জানান, বিভিন্ন সময়ে স্বামীর পাঠানো প্রায় সাড়ে ৯ লাখ টাকা মিজানকে দিয়েও

বিয়ের নামে প্রতারণা করে পালিয়েছে সে। টাকা ছাড়াও অনেক সময় স্বর্ণালংকারসহ বিভিন্ন মূল্যবান উপহার তাকে দিয়েছি।এ বিষয়ে আতাইকুলা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) কামরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি পরকীয়া। তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *