চীনের সঙ্গে সংঘ’র্ষে ভারতের বিশেষ বাহিনীর সদস্য নি’হ’ত

জাতীয়

সীমান্তে চীনের সঙ্গে সংঘ’র্ষে ভারতের বিশেষ বাহিনীর এক সদস্য নি’হ’ত হয়েছেন। নিহত ওই সদস্য তিব্বতীয় বংশোদ্ভূত। গতকাল মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) তিব্বতের এক সংসদ সদস্যের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে একাধিক আন্তর্জাতিক গণমাধ্য মভারতের অভিযোগ, লাদাখের প্যাংগং লেকের এলাকায় ভারতীয় সেনাদের উস্কানি দেয়ার চেষ্টা করেছে চীনা সেনারা। তবে চীন দাবি করেছে, এ ধরনের কোনো কিছুই করেনি

তারা। কোনও পক্ষই বিশেষ বাহিনীর ওই সদস্যের নি’হ’ত হওয়ার খবর স্বীকার করেনি।তবে নির্বাসনে থাকা তিব্বত পার্লামেন্টের একজন সদস্য নামঘায়াল দোলকার লহাগাড়ি বার্তা সংস্থা এএফপি বলেছেন, শনিবার রাতে ‘সংঘ’র্ষে তিব্বতীয় বংশোদ্ভূত এক সৈন্য নি’হ’ত’ হয়েছে।ওই

ঘটনায় বিশেষ বাহিনীর আরও একজন সদস্য আ’হ’ত হয়েছে বলেও জানান তিনি। স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্সে বহু জাতিগত তিব্বতিয়ান কর্মরত আছে। চীন যে তিব্বতের মালিকানা দাবি করে, তার বিরোধিতায় তারা ভারতীয় বাহিনীতে যোগ দিয়েছে।

আরও পড়ুন=স্থানীয়দের নির্মাণ করা বাঁশের সাঁকো ছাড়া কোনো ব্রিজ নেই >> ব্রিজ তো দূরের কথা খালেরও সন্ধান পাওয়া যায়নি >> অধিকাংশ ব্রিজের দৈর্ঘ্য বেশি দেখানো হয়েছে >> ঢাকা থেকেই প্রাক্কলন তৈরি ও অনুমোদন হয়েছে। বরগুনার আমতলী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের তুজির বাজার। এই বাজার সংলগ্ন খালের উপর তিন কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে ৮৫ মিটার দৈর্ঘ্যের (২৭৮.৮৮ ফুট) একটি লোহার ব্রিজ সংস্কার করার কথা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি)। গত শুক্রবার (২৮ আগস্ট) দুপুরে সংস্কারের অন্তর্ভুক্ত ওই ব্রিজটি

তন্নতন্ন করেও খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে একটি বাঁশের সাঁকো পাওয়া গেছে। এ নিয়ে কথা হয় স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুর রাজ্জাক মোল্লার (৬৫) সঙ্গে। এখানে ব্রিজ আছে কি-না জানতে চাইলেই তেলে-বেগুনে জ্বলে ওঠেন তিনি। আব্দুর রাজ্জাক মোল্লা বলেন, এখানে ব্রিজ পাবেন কই? দুই-তিন কিলোমিটারের মধ্যেও এখানে কোনো ব্রিজ নেই।যুগ যুগ ধরে কত জনপ্রতিনিধির, কত অফিসের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছি আমরা। কিন্তু

কেউ এখানে একটি ব্রিজ দেয়নি। প্রতিদিন শত শত গ্রামবাসী বাঁশের সাঁকো দিয়েই এই খাল পার হয়। নিজেদের উদ্যোগে এই সাঁকো তৈরি করেছি আমরা। ওই যে বাঁশের সাঁকো দেখছেন, ওটাই এখানকার ব্রিরুএখানে একটি ব্রিজ আছে এবং সেই ব্রিজটি সংস্কারে তিন কোটি টাকারও বেশি প্রাক্কলন ব্যয় ধরে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে জেনে স্থানীয় যুবক মো. সজীব (২৫) বলেন, দেশটা চোরে ভরে গেছে। এই সাঁকোটিকেই কাগজে-কলমে ব্রিজ বানিয়ে সংস্কারের নামে কোটি কোটি টাকা লোপাটের চেষ্টা চালানো হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এখানকার সংসদ সদস্য ছিলেন। এই লুটপাটের খবর তিনি যদি জানতে পারেন, তাহলে একটা ব্যবস্থা হবেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *