জেনে নিন অনলাইন পোর্টালের নিবন্ধন ফি কত?

জাতীয়

অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের নিবন্ধন স্থাপন ও পরিচালনার জন্য ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে প্রতিটি অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন ফি ১০ হাজার টাকা এবং প্রতিবছর নবায়ন ফি ৫ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব ফি নির্দিষ্ট সময়ের এক মাসের মধ্যে পরিশোধ হলে সারচার্জ ২ হাজার টাকা পরিশোধ করতে হবে। আর এক মাসের মধ্যে পরিশোধে ব্যর্থ হলে সারচার্জ বাবদ ৫ হাজার টাকা পরিশোধের বাধ্যবাধকতা রাখা হয়েছে।

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৭ এর আলোকে অর্থ মন্ত্রণালয়ের ট্রেজারি ও ঋণ ব্যবস্থাপনা অনুবিভাগ থেকে এই ফি ধার্য্য করা হয়। জানা গেছে, দেশের অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার জন্য নিবন্ধনের উদ্যোগ নেয় সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালের ১৯ জুন জাতীয় গণমাধ্যম নীতিমালা ২০১৭ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছিল মন্ত্রিসভা। এরপরই নিবন্ধনের আওতায় আনতে আবেদন নেয়া শুরু করে তথ্য মন্ত্রণালয়।

সর্বশেষ যাচাই-বাছাই শেষে এ পর্যন্ত ৩৪টি অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধনের জন্য চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। এসব অনলাইন নিউজ পোর্টালকে সরকার নির্ধারিত ফি দিয়ে নিবন্ধন নিতে হবে। এছাড়া পত্রিকা, রেডিও টেলিভিশনের অনলাইন নিউজ পোর্টাল চালাতে হলেও বাধ্যতামূলক নিবন্ধন নিতে হবে। সম্প্রতি মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সংক্রান্ত খসড়া আইনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন=লোচিত-সমালোচিত মডেল ও অভিনেত্রী নায়লা নাঈমের বাসায় পাঁচ শতাধিক বিড়াল নিয়ে বিপাকে প্রতিবেশীরা। বিড়ালের দুর্গন্ধে প্রতিবাদ করে এক প্রতিবেশী মারপিটের শিকার হয়েছেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। সবশেষ আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বিড়াল সরিয়ে নেয়া হবে বলে লিখিত প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নায়লা নাঈম। জানা গেছে, নায়লা নাঈম প্রায় চার বছর ধরে বসবাস করেন রাজধানীর আফতাবনগরে। নগরের বি-ব্লকের-২ নং রোডের – নং বাসার ৭ম তলার দুইটি ফ্লাট তার মালিকানায়। ওই ফ্লাটের একটি তিনি বিড়াল পালছেন। এছাড়া ভবনের নিচ তলায় তার একটি অফিস কক্ষ রয়েছে। অফিস কক্ষটি ডেন্টাল ডাক্তার হিসেবে নিজের চেম্বারের সাইনবোর্ড লাগান। কিন্তু কখনোই সেখানে কোনো রোগী দেখার কাজ হয় না।

৭ম তলার দুইটি ফ্লোরের একটি বিড়াল পালনের কাজেই ব্যবহার করেন নায়লা। এক ফ্ল্যাট থেকে অন্য প্লাটের সংযোগ রয়েছে। তিনি নিজে যে ফ্ল্যাটে বসবাস করেন সেটিতে ৫০টির মতো বিড়াল রয়েছে। এসব বিড়ালের বিষ্ঠা লিফটে করে নামানো হয়। লিফটে বিড়ালও ওঠা-নামানো করান কর্মচারীরা। ফলে লিফট ও অন্যান্য ফ্লোরে ব্যাপক দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। প্রায় চার বছর ধরে এই সমস্যা সইতে হচ্ছে প্রতিবেশীদের। বিষয়টি নিয়ে প্রতিবেশীদের দীর্ঘদিনের আপত্তি ও অভিযোগ রয়েছে। ইতিপূর্বে বাড্ডা থানায় একাধিকবার অভিযোগ করেছে ফ্ল্যাট মালিক সমিতি। সমিতির পক্ষ থেকে বাড্ডা থানায় অভিযোগও দেয়া হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তারা কোনো সুরাহা পায় না।

নায়লা নাঈমের বাণিজ্যিকভাবে বিড়াল পালনের অনুমতি রয়েছে তা জানা যায়নি। তবে বন বিভাগের ঢাকা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা কাজল তালুকদার জানান, বন বিভাগ থেকে এখনো পর্যন্ত হরিণ পালন ও বিদেশি পশু-পাখি যারা দেশে এনে পালন করে তাদের অনুমোদন দেয়া হয়। কুকুর বা বিড়াল বাণিজ্যিকভাবে পালনের বিষয়টি আমাদের নীতিমালাভুক্ত নয়। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শেখ আজিজুর রহমান বলেন, নায়লা নাঈম নামে কারো বিড়াল বা কুকুর পালনের অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে জানা নেই। তবে বাণিজ্যিকভাবে এভাবে কুকুর, বিড়াল বা এ জাতীয় প্রাণি পালন করতে হলে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র নেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *