পুকুরের পাশে মিলল মাদরাসা ছাত্রের লাশ

জাতীয়

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলায় শালখুরিয়া এতিম খানা মাদরাসার ছাত্র মো. আবু মুসাকে (১১) নির্যাতন করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার সকালে মাদরাসা থেকে কিছু দূরে একটি খাল থেকে পুলিশ ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে।নিহত আবু মুসা উপজেলার ভাদুরিয়া ইউনিয়নের বড়বাড়িয়া গ্রামের মো. শাহিন ইসলামের ছেলে। নবাবগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অশোক কুমার চৌহার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নবাবগঞ্জ থানার ওসি বলেন, উপজেলার শালখুরিয়া ইউনিয়নে এতিমখানা মাদরাসার অদূরে একটি খালের পাশে শিশুর লাশ পড়ে আছে এমন সংবাদে সেখানে উপস্থিত হয়ে ওই ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা যাচ্ছে এটি একটি হত্যাকাণ্ড। লাশের হাতে কব্জীর মাংস অনেকটা ছিঁড়ে গেছে। নখ ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

আরো পড়ুন…জামিন পেলেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের লাঞ্ছনার শিকার মুক্তিযোদ্ধা ইসাহাক আলী ও তার ছেলে রাকিবুল ইসলাম।রোববার (০৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিন চান তারা। শুনানি শেষে আদালতের বিচারক সাইফুল ইসলাম পুলিশের প্রতিবেদন দাখিল না হওয়া পর্যন্ত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। আদালত থেকে বেরিয়ে এসে রাকিবুল ইসলাম জাগো নিউজকে এসব তথ্য জানান।মুক্তিযোদ্ধা ইসাহাক আলী চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা। পরিবার নিয়ে রাজশাহী নগরীর টিকাপাড়া এলাকায় বসবাস করেন অবসরপ্রাপ্ত এই পুলিশ সদস্য। তার ছেলে রাকিবুল ইসলাম চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক হিসেবে কর্মরত।

২ সেপ্টেম্বর রামেক হাসপাতালে মুক্তিযোদ্ধা ইসাহাক আলীর স্ত্রী পারুল বেগম (৬৫) বিনা চিকিৎসায় মারা যান। মায়ের মৃত্যুতে প্রতিবাদ করেন ছেলে রাকিবুল ইসলাম। এ সময় শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা একজোট হয়ে মুক্তিযোদ্ধা ইসাহাক আলী ও তার ছেলে রাকিবুল ইসলামকে দফায় দফায় মারধর করেন। তাদের হাত থেকে রেহাই পাননি রাকিবুলের স্ত্রী-স্বজন এমনকি সঙ্গে থাকা সহকর্মীও।এরপর মরদেহ আটকে রেখে প্রকাশ্যে বাবা-ছেলেকে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করেন চিকিৎসকরা। শেষে রাকিবুলকে তুলে দেন পুলিশের হাতে। পরে ক্ষমা চেয়ে স্ত্রীর লাশ নিয়ে যান মুক্তিযোদ্ধা ইসাহাক আলী।এ নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেন হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুক্তার হোসেন। চিকিৎসকদের এই অপকর্ম সামনে আসায় ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *