বউ পেটানোর ‘সাফাই’ গাইলেন বেকার স্বামী

জাতীয়

পাঁচ লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। নির্যাতনের শিকার শারমিন আক্তার মুক্তিকে সোমবার মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।শারমিন আক্তার মুক্তি উপজেলার আউনাড়া গ্রামের পান্নু মিয়ার মেয়ে। তিনি

জানান, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে উপজেলার আউনাড়া গ্রামের অলিয়ার সর্দারের ছেলে আলামিন ওরফে সোবহানের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তারা বাবা-মা সামর্থ অনুযায়ী তার স্বামীকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করে আসছে। করোনায় বেকার হয়ে পড়ার পর থেকে

তার চাহিদা বাড়তে থাকে।শারমিন অভিযোগ করে বলেন, ‘রোববার রাতে আমাকে খুব মারধর করেছে সে। শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মারপিটের কারণে আমি হাঁটতে পারছি না। এক সপ্তাহ আগেও আমাকে গরম খুন্তি দিয়ে ছ্যাঁকা দিয়েছে। তারা আমাকে ১৫ দিন ধরে প্রচুর নির্যাতন

করেছে। ঠিকমতো খেতে দেয়নি। আমি রান্না করে অন্য ঘরে গেলে তারা খাবার খেয়ে ঘরে তালা দিয়ে রাখে। আমাকে শারীরিক এবং মানসিকভাবে প্রচুর নির্যাতন করেছে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন।’

তিনি আরও বলেন, আমার স্বামী এখন যৌতুক চায়। আমার বাবা-মার কাছে সে ৫ লাখ টাকা চায়। জামাইকে যতটুকু দেয়ার বাবা-মা তা দিয়েছে। বাবা-মা এখন অপারগ। তারা কোথা থেকে দেবে।এদিকে টাকা চাওয়ার কথা স্বীকার করে স্বামী সোবহান জানান, ‘ঢাকায় একটি

কোম্পানিতে চাকরি করতাম। করোনার কারণে বেকার হয়ে বাড়ি বসে আছি। অনার্স-মাস্টার্স পাস করে বাড়ি পড়ে থেকে ডিপ্রেশনের মধ্যে আছি। আমি কিছু টাকা চেয়েছিলাম। কিন্তু নির্যাতন করিনি।’এ ব্যাপারে মহম্মদপুর থানার ওসি তারেক বিশ্বাস বলেন, লিখিত কোনো অভিযোগ এখনও পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *