বখশিশ দিতে দেরি হওয়ায় অক্সিজেন খু’লে দিলেন নার্স, শি’শুর মৃ’ত্যু

জাতীয়

বখশিশের টাকা দিতে বিলম্ব হওয়ায় শ্বাসক’ষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া এক মাস বয়সী শি’শু আব্দুর রহমান নামে এক শি’শুর অক্সিজেন মাস্ক খুলে দেয়ার অ’ভিযোগ উঠেছে কর্তব্যরত নার্স রিমা আকতারের বি’রুদ্ধে।অক্সিজেন মাস্ক খুলে ফেলার কয়েক মিনিট পরেই শি’শুটি মা’রা যায়। শি’শু আব্দুর রহমান গাইবান্ধা সদর উপজে’লার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে। গতকাল শনিবার (৮ আগস্ট)

দুপুরে গাইবান্ধা জে’লা হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।স্বজনরা জানান, শ্বাসক’ষ্টসহ নানা উপসর্গ নিয়ে রোববার দুপুরে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় শি’শু আব্দুর রহমানকে। ভর্তি করার পর পরই অক্সিজেন মাস্ক পরিয়ে দেন কর্তব্যরত নার্স রিমা আকতার। কিছুক্ষণ পর নার্স রিমা আকতার শি’শুটির স্বজনদের কাছে অক্সিজেন বাবদ বখশিশ দাবি করেন। বখশিশের টাকা আনতে বিলম্ব হওয়ায় ওই নার্স অক্সিজেন মাস্কটি

খুলে ফে’লেন। এরপর শি’শুটি কিছুক্ষণের মধ্যেই মা’রা যায়।গাইবান্ধা জে’লা হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ফারুক হোসেন জানান, অক্সিজেন দেয়ার জন্য কাউকে বখশিশ দেয়ার কোনো ঘটনা ঘটেনি। তবে রো’গীর স্বজনরা বখশিশের জন্য অক্সিজেন মাস্ক খুলে নেয়ার বি’ষয়ে অ’ভিযোগ করেছে। এ বি’ষয়ে লিখিত অ’ভিযোগ করলে ত’দন্ত করা হবে।সূত্রঃ জাগোনিউজ

আরও পড়ুন=গোটা শরীর অসাড়। সচল শুধু মাথা ও ডান হাতের দুটি আঙ্গুল। সেগুলোই কাজে লাগিয়ে আউটর্সোসিংয়ের মাধ্যমে প্রতিমাসে গড়ে ৫০ হাজার টাকা আয় করে গোটা সংসারের হাল ধরেছেন ফাহিমুল করিম। শুধু সংসারের সচ্ছলতা ফিরিয়ে আননেনি তিনি। তার অর্জিত অর্থ দিয়ে মাগুরা শহরে জমি কিনে বাড়ি করে মা-বাবার জন্য মাথা গোঁজার ঠাঁই করেছেন বিস্ময়কর এই যুবরু ফাহিমের বাবা একটি বেসরকারি

প্রতিষ্ঠানের বিপণন কর্মী রেজাউল করীম জানান, মাগুরা শহরের ভায়না পিটিআই পাড়ার ভাড়াবাসায় স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে তিনি বসবাস করে আসছিলেন। টানাটানির সংসার হলেও ভালোভাবেই কাটছিল তাদের দিন। কিন্তু ২০১২ সালে জেএসসি পরীক্ষার আগে হঠাৎ করেই শয্যাশায়ী হয়ে পড়ে একমাত্র ছেলে ফাহিম। চিকিৎসকরা জানান, ডুচেনেমাসকিউলার ডিসথ্রফি রোগে আক্রান্ত ফাহিম। বাংলাদেশ ও ভারতের চিকিৎসকদের কাছে নেওয়া হয় তাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *