বিকৃত যৌ’ন চাহিদা স্বামীর, প্র’তিবাদ করায় তিন তালাক

জাতীয়

৪৭ বছর বয়সী এক নারী তার স্বামীর বি’রুদ্ধে পুলিশের কাছে অ’ভিযোগ করেছেন। মুম্বাই পুলিশকে তিনি জানিয়েছেন, যৌ’তুকের দাবিতে শারীরিতভাবে নি’র্যাতন করে স্বামী; এছাড়া বিকৃত যৌ’নতারও অ’ভিযোগ করেছেন তিনি। মুম্বাইয়ের আম্বলি পুলিশ স্টেশনে এ ব্যাপারে ব্যবসায়ী

ইবরাহিম লাকদাওয়ালার বি’রুদ্ধে সাধারণ ডায়েরির পর তা মা’মলা হিসেবে নথিবদ্ধ হয়েছে। ইবরাহিম লাকদাওয়ালার তৃতীয় স্ত্রী ছিলেন ওই নারী। এরই মধ্যে তাকে তিন তালাক দিয়েছেন ইবরাহিম। স্বামী তার ন’গ্ন ছবি তুলতে চান, বিকৃত যৌ’নতা ও যৌ’তুকের জন্য চা’প দেওয়ার অ’ভিযোগ করেছেন ওই নারী। তাতে রাজি না হলে স্টিলের র’ড দিয়ে পে’টানোর ক্ষ’তও দেখিয়েছেন পুলিশকে।

স্বামীর চা’পে বাবার বাড়ি থেকে চার লাখ ৮০ হাজার রুপি নিয়ে গিয়ে ইবরাহিমকে দিয়েছেন। তার পরেও ইবরাহিম সন্তুষ্ট হননি। গত ৩ জুন তাকে তিন তালাক দিয়ে বাপের বাড়ি চলে যেতে বলেছেন ইবরাহিম। তার আইনজীবীর দাবি, ওই নারী বিকৃত যৌ’নতার শি’কার এবং তিন তালাক পেয়ে ক্ষ’তিগ্রস্ত। তিনি যেন সুবিচার পান, সেই আবেদন করেছেন আইনজীবী।সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

আরও পড়ুন=নিজের প্রতিষ্ঠান নিয়ে ওঠা অভিযোগগুলো মিথ্যা বলে দাবি করেছেন ডিজিটাল বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান ই-ভ্যালির ব্যবস্থাপনা প‌রিচালক (এম‌ডি) মো. রা‌সেল। শুক্রবার (২৮ আগস্ট) রাত ১১টায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসে তিনি এ দাবি করেন। এ সময় আবেগপ্রবণ হয়ে কেঁদে ফেলেন মো. রাসেল। বারবার টিস্যু দিয়ে তাকে চোখ মুছতে দেখা যায়।লাইভে মো. রাসেল বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে অভিযোগগুলো মিথ্যা। আমি জোর গলায় আশ্বস্ত করতে চাই, ব্যাবসায়িক দিক থেকে আমাদের কোনো দুর্বলতা নেই।

প্রধানমন্ত্রীসহ বাংলাদেশের সরকারের সবগুলো জায়গায় লিখিত আবেদন দিব, যাতে ব্যবসাটা রানিং রেখে সিদ্ধান্তগুলো নেওয়া হয়।ই-ভ্যালীতে যাদের বিভিন্ন পণ্যের অর্ডার করা আছে তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যাদের অর্ডার আছে তাদের একটা অর্ডারও মিস হবে না। ধীরে-ধীরে আমরা সবগুলোই ক্লিয়ার করব। যদি আপনারা আমাদের পাশে থাকেন এবং ভরসা রাখেন, এই সাময়িক সমস্যা আমরা কাটিয়ে উঠতে পারব।

এর আগে একটি স্ট্যাটাসের মাধ্যমে মো. রা‌সেল জানান, আমরা বিশ্বাস করি, শীঘ্রই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে। তারা যা যাচাই করতে চান, আমরা সহযোগিতা করবরুগ্রাহকদের উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা প‌রিচালক বলেন, আমরা আপনাদের নৈতিক সমর্থন আশা করি। আমাদের সাথে থাকুন, আসুন আমরা সমস্যাগুলি কাটিয়ে উঠার চেষ্টা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *