মসজিদে ভ`য়াবহ বি`স্ফোরণ, দ`গ্ধ হয়েছেন যারা,দেখে নিন নাম পরিচয়!

জাতীয়

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে এসি বি`স্ফোরণের ঘটনায় শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ৩৭ জনকে ভর্তি করা হয়েছিল। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের তালিকায় রয়েছেন মসজিদের মুয়াজ্জিনও। শনিবার (৫ সেপ্টেম্বর) ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পু`লিশের পরি`দর্শক বাচ্চু মিয়া এ তথ্য জানান।

নি`হ`তের নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি।তবে জানা যায়, বার্ন ইউনিটে হাসপাতালের ইমাম মালেক আনসারি, মুয়াজ্জিন দেলোয়ার হোসেন, সাংবাদিক নাদিম সহ ৩৭ জনকে সেখানে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া দ`গ্ধ কয়েকজনের নাম পাওয়া গেছে। তারা হলেন- মো. আজিজ (৫৫), মিজান (৪০), হুমায়ুন কবির (৭০), জুলহাস (৩০), ইব্রাহিম (৪২), ইমাম হোসেন (৩০), আমজাদ হোসেন (৩৮), মোস্তফা কামাল (৩৫), ছাত্তার (৩০), আব্দুল মালেক (৬০), কাঞ্চন হাওলাদার (৫০), জোনায়েদ (২৮), ফরিদ (৫৫), শেখ ফরিদ (২১),

শোমিক (৩৩), রিফাত (১৮), মহিউদ্দিন (১২), রাসেল (৩৪), রাশেদ (৩০), নয়ন (২৭), আব্দুল বাশার মোল্লা (৫১), বাহাউদ্দিন (৫৫), শামীম হাসান (৪৫), জোবায়ের (১৮), জয়নাল (৫০), মোহাম্মদ আলী (৫৫), ছাব্বির (২১), মামুন (৩০), কুদ্দুস বেপারী (৭০), লিয়াকত (১৮), জামাল (৪০), ইনু (৩৫), শাহেদ (৪০) প্রমুখ।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পৌনে ৯টায় বিকট শব্দে বি`স্ফোরণ ঘটে। মুহূ`র্তেই মসজিদের ভেতরে আ`গুন ছড়িয়ে পড়ে। ওই `সময়ে মসজিদে থাকা মু`সল্লীদের গায়ে আ`গুনের ফুলকি গিয়ে পড়লে একে একে দ`গ্ধ হতে থাকে।

মসজিদের ভেতর থেকে আসতে থাকে মু`সল্লীদের আ`ত্মচিৎকার। পরে আশেপাশের লোকজন দিয়ে তাদের উদ্ধার করে। তাদের অনেকের শরীরের কাপড় ছিল না। আ`গুনে পুড়ে যায় শরীরের কা`পড়গুলো। দ`গ্ধ হয় ইমাম মালেক আনসারি ও মুয়াজ্জিন দেলোয়ার হোসেন সহ ৩৭ জন।প্রত্যক্ষদর্শীরা আরও জানান, বিকট শব্দে বি`স্ফোরণের পর বিদ্যুৎ চলে যায়। তখন মসজিদ থেকে একে একে মুসল্লীরা খালি গায়ে দ`গ্ধ হয়ে বের হতে থাকে। ‘বাঁচাও বাঁচাও’ চিৎকার করে একে একে বেরিয়ে আসতে থাকে। তাদের চিৎকারে সেখানে হৃ`দয়বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

একে একে মুসল্লীদের রিকশায় করে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হয়।মসজিদের ভেতরে এক ধংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। মসজিদের জানালার গ্লাসগুলোর সবগুলো ভাঙ্গা ছিল। ভেতরে কয়েকটি চেয়ার ছিল ভাঙাচোরা। ফ্যানগুলোও বাকা হয়ে যায়। ভেতরে থাকা দেড় ও ২ টনের ৬টি এসির সবগুলো বি`স্ফোরণ ঘটে ভেতরের য`ন্ত্রাংশ বেরিয়ে গেছে। মসজিদের ভেতরে ফ্লোরের কিছু স্থানে র`ক্তের পানি দেখা গেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *