যে কারণে তিন মাস রাত জেগে কবর পাহারা দেবে পরিবার!

জাতীয়

ঝড় ও বৃ-ষ্টির সময় বিভিন্ন এলাকায় ব-জ্রপাতে মৃ-ত্যুর ঘ-টনায় যেমন আত-ঙ্ক বাড়ছে, সেই সঙ্গে বাড়ছে মৃ-তদেহ চুরির আ-তঙ্ক। অনেকে বিশ্বাস করেন, ব-জ্রপাতে মৃত ব্য-ক্তির মরদেহ, ক-ঙ্কাল বা অস্থি কবিরাজী চিকিৎসাতে অনেক মূ-ল্যবান।এই মতকে বিশ্বাস করে ব-জ্রপাতে -নি-হত কলেজ শিক্ষার্থী দাফনকৃ-ত ম-রদেহের অ-স্থি চু-রি যেতে পারে ভেবে রাত জেগে কবর পাহারা দিচ্ছেন স্ব-জনরা। তিন মাস ধরে এই পাহারা চলবে বলে জানিয়েছেন স্ব-জনরা।কবরটি কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা গ্রামের ইউনিয়নের ঘোগারকুটি গ্রামের অধিবাসী

আরিফুল ইসলামের। সফুলবাড়ী ডিগ্রি কলেজে এইচএসসি পরীক্ষার্থী আরিফুল ইসলাম (১৮) গত মঙ্গলবার (১ আগষ্ট) সকাল ৯টার দিকে বৃষ্টি শুরু হলে নীলকোমল নদী থেকে সেচের জন্য পানি তোলা মেশিন বন্ধ করতে গিয়ে বজ্রপাতে মারা যায়। পরে ঘোগারকুটি এলাকার বাড়ির পাশে তার মর-দেহ দাফ-ন করা হয়। এ ঘ-টনাকে কে-ন্দ্র করে ফুলবাড়ী থানায় একটি ইউডি মামলা দায়ের করা হয়।এদিকে মৃ-ত আরিফুলের মামা হাফিজুর রহমান জানিয়েছেন, তার বোন রাহিলা বেগমের সাথে সদর উপজেলার ভোগডা-ঙ্গা ইউনিয়নের কুমোরপর কদমেরতল এলাকার

শহিদুল ইসলামের বিয়ে হয়েছিল। এই দম্প-তির ৩ ছেলেমেয়ের মধ্যে আরিফুল ছিল সবার বড়। এ অব-স্থায় স্বামীর সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ হলে স-ন্তানদের নিয়ে ঘোগারকুটি গ্রামে পিতা আজগার আলীর বাড়িতে চলে এসে বসবাস করতে থাকেন। রাজমি-স্ত্রীর যোগালীসহ নানান কায়িক শ্রমের কাজ করে ৩ স-ন্তানকে লালনপালন করতে থাকেন। এরপর আরিফুল এসএসসি পাশ করার পর রাহিলা বেগম তার ৩ স-ন্তানকে পিতার বাড়িতে রেখে কাজ নিয়ে চলে যান জর্ডানে। ফলে নানার বাড়িতে থেকে লেখাপড়াসহ লালিত পালিত হচ্ছিলেন আরিফুলসহ ৩ ভাইবোন।

তিনি আরও জানান, তার বোন রাহিলা বেগম জ-র্ডান থেকে টাকা পাঠিয়ে তাদের বাড়ির সাথে ১৬ শতাংশ জমি কিনেছেন বাড়ি করার জন্য। সেই জমির একপাশে আরিফুলের মরদেহ দা-ফন করা হয়েছে।মামা হাফিজুর রহমান আরও জানান, তারা যুগ যুগ ধরে শু-নে আসছেন কবিরাজী চিকি-ৎসায় ব-জ্রপাতে নি-হত ব্যা-ক্তির ম-রদেহ, কঙ্কাল বা অ-স্থি অ-ত্যন্ত মূ-ল্যবান। এ কথা তার বিশ্বাস করেন। এজন্য লাশ চুরি

ঠেকাতে কবরের পাশে তাঁবু টানিয়ে তার নিচে চৌকি বিছিয়ে রাত জেগে পালা-ক্রমে কবর পাহারা দিচ্ছেন স্বজনরা। এই পাহারা ৩ মাস চলবে।এ প্রসঙ্গে কুড়িগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান জানান, কবর পাহারা দেওয়ার ঘটনাটি শুনেছেন। প্রচলিত যে ধারণায় তারা কবর পাহারা দিচ্ছেন তার কোন ভিত্তি নেই। কুসংস্কার মাত্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *