যে কারণে দ্বিতীয় স্বামীকে তালাক দিতে বাধ্য হলেন নায়িকা মুনমুন

জাতীয়

স্বামী মীর মোশাররফ রোবেনকে তালাক দিয়েছেন চিত্রনায়িকা মুনমুন। সম্প্রতি টাঙ্গাইলের সখীপুরে মসজিদের সামনে নেচে তুমুল সমালোচনায় পড়েন অভিনেত্রী মুনমুন। এরপরেই জানা গেল মুনমুনের সংসার ভাঙনের ঘটনা। তবে এই ঘটনা ঘটেছে কোরবানি ঈদের সময়। মুনমুন বলেন, আমার তেমন অভিযোগ নেই।

দীর্ঘ ১০ বছর আমরা একসঙ্গে ছিলাম, সে শুধু তার স্বার্থের কথাই ভেবে গেছে। সংসারের দিকে মনোযোগ ছিল না। সে সিনেমা বানাতে চাইতো আমি অর্থের যোগান দিতাম। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হতো না। যার কারণে আমি তাকে বলতাম সংসারের দিকে মনোযোগ দিতে। সে দিতো না। মুনমুন ২০০৩ সালে সিলেটের একজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে পরিণয়সূত্রে আবদ্ধ হলে,

যুক্তরাজ্যে চলে যান। ২০০৬ সালে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। পরে, ২০১০ সালে তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এই দম্পতির দুই পুত্র সন্তান রয়েছে। শারীরিক নির্যাতন করতো উল্লেখ করে মুনমুন বলেন, তাকে আমি আমার নিজের একটি ফ্ল্যাট ছেড়ে দিয়েছিলাম স্টুডিওর জন্য। বিভিন্নভাবে টাকা পয়সা দিতাম। আমিও চাইতাম সে উঠুক, সে নায়ক হতে চাইতো। আমিও সর্বোচ্চ চেষ্টা করতাম, কিন্তু আমাকে শারীরিক নির্যাতন করতো এটা মেনে নিতে পারতাম না।

রোবেন পেশায় একজন শৌখিন মডেল ও মুনমুনের সঙ্গে যাত্রা-শোসহ পারফর্মার হিসেবে কাজ করেন। কাজ করতে গিয়ে অপেক্ষাকৃত বয়সে ছোট হওয়া সত্ত্বেও মুনমুন তাকে বিয়ে করে সংসারী হন। এদিকে খোঁজ নিয়ে আরো জানা গেছে, নতুন সম্পর্কে জড়িয়েছেন সমালোচিত এই নায়িকা। তিনি এবার সম্পর্কে জড়িয়েছেন আলোচিত এক প্রযোজকের সঙ্গে। ওই প্রযোজক করোনাকালীন বিভিন্ন সময়ে তাকে সহযোগিতা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *