শান্তিরক্ষা মিশনে সৈন্য প্রেরণে শীর্ষে বাংলাদেশ

জাতীয়

এবার জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনে সর্বাধিক সৈন্য প্রেরণ করে পৃথিবীতে শীর্ষস্থান অর্জন করেছে বাংলাদেশ। গতকাল শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের (আইএসপিআর) এ তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, বর্তমানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনে ৬ হাজার ৭৩১ জন বাংলাদেশি সৈন্য শান্তিরক্ষী হিসেবে কাজ করছেন। এতে বাংলাদেশ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে প্রথম স্থান অধিকার করেছে।

উল্লেখ্য, ১৯৭০ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রতিষ্ঠার পর থেকেই জাতিসংঘের শান্তি রক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে একাধিক দেশে সক্রিয়ভাবে জড়িত রয়েছে। ১৯৮৮ সালে প্রথম দুটি অপারেশনে অংশগ্রহণ করে বাংলাদেশ। এর একটি হলো ইরাক (UNIIMOG) এবং নামিবিয়া (UNTAG)।

aro porun=নাঈমুর রহমান দুর্জয়, আমিনুল ইসলাম বুলবুল, খালেদ মাহমুদ সুজন কিংবা আকরাম খান, হাবিবুল বাশারদের হাত ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেটের অগ্রযাত্রা শুরু। মাশরাফি মর্তুজা, সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিমরা সেটাকে বিশ্বমানের দলে পরিণত করেছেন। তবে এই সময়ে হারিয়ে গেছেন প্রতিভাবান আরও কিছু ক্রিকেটার। যারা তাদের সেরাটা দিতে পারলে বাংলাদেশের ক্রিকেট এগিয়ে যেতে পারতো আরও সামনে।

অলক কাপালি: বাংলাদেশ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে পেয়েছে। আর একজন সাকিব না হোক বিশ্বমানের একজন স্পিন অলরাউন্ডার হতে পারতেন অলক কাপালি। নিঁখুত টেকনিকের ব্যাটিং, শট খেলার পারদর্শীতার সঙ্গে কার্যকর একজন লেগ স্পিনার তিনি। দেশের হয়ে ৬৯ ওয়ানডেতে এক সেঞ্চুরির সঙ্গে ফিফটি আছে পাঁচটি। অলক ২০০২ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত টানা খেলেছেন। ক্যারিয়ার সেরা ফর্মে ফিরতেই নিষিদ্ধ ভারতীয় আইসিএলে যান। এরপর বিসিবির নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে জাতীয় দলে ফিরেও টিকতে পারেননি।

রাকিবুল হাসান: ব্যাটিং টেকনিক, দারুণ ফুটওয়ার্ক এবং ঠান্ডা মাথার ক্রিকেটার হিসেবে রাকিবুল হাসানের জুড়ি মেলা ভার। দেশের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরি তার। জাতীয় দলে ৫৫ ওয়ানডেতে প্রায় ২৮ গড়ে ১৩শ’ রান করেছেন। মিডল অর্ডারে সেই সময়ে তার গড়টা খারাপ বলার উপায় নেই। কিন্তু স্ট্রাইক রেট ছিল কম। ওয়ানডে থেকে বাদ পড়ায় ক্ষোভে তিনি অবসর নিয়ে নেন। এক সপ্তাহ পরেই আবার ফিরে আসেন। কিন্তু দলে তার জায়গা পাকা হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *