শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা ঋণ চালু করছে সরকার

জাতীয়

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছেন, দেশের শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা ঋণ চালু করার কথা ভাবা হচ্ছে। শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)আয়োজিত ‘করোনাকালে ই-লার্নিং’ শীর্ষক অনলাইন আলোচনায় তিনি এ কথা জানান।

এ সময় ডা. দীপু মনি বলেন , ‘শিক্ষার্থীদের সহজে শিক্ষা চালিয়ে নিতে শিক্ষা ঋণ দেওয়া যেতে পারে। আমি সংসদে বলেছি, প্রধানমন্ত্রী মাথা নেড়ে সম্মতি জানিয়েছেন। আমরা এখন থেকে শিক্ষা ঋণ দেওয়ার কথা ভাবছি।

কীভাবে শিক্ষার্থীদের সক্ষম করে তুলবো, যেখানে যতটুকু প্রয়োজন আছে সেটা যেন তারা মেটাতে পারে। এসব বিষয় নিয়ে আমরা কাজ করছি। কোনোভাবেই যেন শিক্ষার্থীরা বৈষম্যের শিকার না হয়। ‘ই লার্নিং’ ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন যুক্তরাজ্যের ‘ইউনিভার্সিটি অব সারে’-এর উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ওসামা খান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিসিসিআই সভাপতি শামস মাহমুদ।

আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর রশিদ, আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কারম্যান জেড লামাংনা, বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. মুরাদ হোসেন মোল্লা, ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি’র ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. খাজা ইফতেখার উদ্দিন আহমদ, নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ফিন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ইশতিয়াক আজিম প্রমুখ।

আরও পড়ুন=ভারতীয় ক্রিকেট দলের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে প্রশংসার ব্যাপারে বরাবরই উদার পাকিস্তানের সাবেক তারকা পেসার শোয়েব আখতার। সুযোগ পেলেই কোহলিকে বর্তমান সময়ের সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে আখ্যায়িত করেন শোয়েব। তবে এবার তিনি করেছেন এক অদ্ভুত দাবি। শোয়েব আখতারের মতে আজ থেকে ৯-১০ বছর আগে বিরাট কোহলি ছিলেন তার (শোয়েব) মতোই ছোঁড়া। যে কি না বিগত বছরগুলোতে অভূতপূর্ব উন্নতির মাধ্যমে নিজের খেলাকে নিয়ে গেছে অনেক ওপরে। আর এ কারণেই বারবার কোহলির প্রশংসা করে যান শোয়েব।

রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেসখ্যাত এ পেসার বলেছেন, ‘বিরাট কোহলি এখন অনন্য এক পর্যায়ে পৌঁছে গেছে। কিন্তু এই কোহলি ব্র্যান্ডের পেছনে কারা আছে? ২০১০, ২০১১ সালের দিকে কোহলির কোনো নামডাকই ছিল। সে বৃত্তের একটা অংশ ছিল, আমার মতোই একজন ছোঁড়া ছিল। ক্রিকেটবাজের ইউটিউব অনুষ্ঠানে দেয়া সাক্ষাৎকারে শোয়েব আরও যোগ করেন, ‘এরপরই আমূল পরিবর্তন। পুরো ক্রিকেট ব্যবস্থা তাকে সমর্থন দিয়েছে, ম্যানেজম্যান্ট সবসময় তার পাশে ছিল এবং সে নিজেও বুঝতে পেরেছিল যে এখানে তার মানসম্মান ও মর্যাদা জড়িত।

এদিকে বর্তমান সময় ছাপিয়ে অনেকেই আবার কোহলিকে তুলনা করেন ভারতের ইতিহাসের সর্বকালের সেরা ক্রিকেটার শচিন টেন্ডুলকারের সঙ্গে। কিন্তু এক্ষেত্রে কোহলিকে পিছিয়ে রাখা হয়, তুলনামূলক সহজ যুগে খেলার কথা বলে। তবে শোয়েব এসব যুক্তি মানতে রাজি নরুতার ভাষ্য, ‘এটা তো তার দোষ নয় যে, সে (কোহলি) ক্রিকেটের সহজ যুগে খেলছে অথবা শচিন কঠিন যুগে খেলেছে অথবা ওয়াসিম, ওয়াকার ও ইনজামামদের মতো প্রতিন্দ্বিতাপূর্ণ ক্রিকেটার এখন নেই। তাই এখন যেহেতু সে রান করছে, আমরা তার ব্যাপারে কী বলতে পারি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *