হাত-পা বেঁধে ছাত্রকে বে’ধড়ক পি’টুনি, অতঃপর

জাতীয়

সাভারের আশুলিয়ায় একটি মাদ্রাসার দুই শিশু শিক্ষার্থীকে হাত-পা বেঁ’ধে মা’রধ’রের ঘটনায় আ’টক করা হয়েছে অভি’যুক্ত শিক্ষক মো: ইব্রাহিমকে। সোমবার রাতে আশুলিয়ায় শ্রীপুরের মধুপুরে জাবালে নূর কওমি মাদ্রাসা থেকে তাকে আ’টক করা হয়।এর আগে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই কওমি মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগের শিক্ষার্থী শরিফুল ইসলাম (১৩) ও মাহফুজুর রহমানকে (১৩) বেত দিয়ে পে’টায় শিক্ষক হাফেজ মোহাম্মদ ইব্রাহিম। পি’টুনির সেই ফুটেজ ফেসবুকে ভাইরাল হলে তা নিয়ে সমা’লোচনার ঝড় ওঠে।

জানা যায়, নির্যা’তিত শিক্ষার্থী শরিফুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল ও অপর শিক্ষার্থী মাহফুজুর রহমানের বাড়ি ঝালকাঠি সদর জেলার দেউলকাঠি গ্রামে।নির্যা’তনের শিকার শিক্ষার্থী মাহফুজুর রহমান জানায়, তার সহপাঠী শরিফুল নির্যা’তন সইতে না পেরে পালিয়ে যায়। পরে তাকে খুঁজে নিয়ে এসে মাদ্রাসার ভেতর হাত-পা বেঁধে

নির্যা’তন চালায় শিক্ষক ইব্রাহিম। এসময় শরিফুলকে পালাতে সহায়তার অভি’যোগে তাকেও বেত্রা’ঘাত করে জখ’ম করেন ওই শিক্ষক।আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহির উদ্দিন জানান, শিশু শিক্ষার্থীকে নির্যা’তনের অভি’যোগের সত্যতা মিলেছে। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

আরও পড়ুন=ফুটবল খেলায় গোল নানা ভাবেই মিস হতে পারে। তবে, বেলজিয়ামের ১৭ বছর বয়সী মিডফিল্ডার অ্যাস্টার ভ্র্যাঙ্কস যেভাবে ফার্স্ট ডিভিশন ম্যাচে গোলের অতি সহজ সুযোগ হাতছাড়া করলেন, সেটাকে বর্ণনা করার মতো বিশেষণ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। এটাকে লজ্জাজনক গোল মিস বললেও কম বলা হবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকেই লিখছেন, ‘এটাই কি ফুটবলের ইতিহাসের সব থেকে লজ্জাজনক গোল মিস?’

সব থেকে খারাপ যদি নাও হয়, তবে অন্যতম খারাপ সন্দেহ নেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় অ্যাস্টারের এমন ফাঁকা গোলে বল জড়াতে না পারা নিয়ে একদিকে যেমন ব্যঙ্গ বিদ্রুপের ঝড় বইছে, ঠিক তেমনই উঠে আসছে অতীতের এমনই সব লজ্জাজনক গোল মিস করার ছবি ও ভিডিও। বেলজিয়ামের ফার্স্ট ডিভিশন লিগে মেশেলেন বনাম কেভি উস্তেন্দের মধ্যে ম্যাচ চলছিল। ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধে গোল করে মেশেলনকে লিড এনে দেওয়ার সুযোগ ছিল অ্যাস্টারের সামনে। যা তিনি করে দেখাতে পারেননি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *